Home Blog

ফনা তুলে ও চুপচাপ বাংলাদেশ সরে গেল ফনি

বাংলা নিউজ অনলাইন ডেস্ক : গত এক সপ্তাহ ধরে আবহাওয়া দপ্তর এর আগাম পূর্বাভাস অনুযায়ী ঘূর্ণিঝড়ে পশ্চিমবঙ্গ লন্ডভন্ড করে দেওয়ার যে পূর্বাভাস ছিল তা এক প্রকার নস্যাৎ করে দিয়ে ওড়িশা হয়ে চুপচাপ বাংলাদেশের দিকে সরে গেল ঘূর্ণিঝড় ফনি। বঙ্গ রাজ্যে ঘূর্ণিঝড়ের সেরকম কোন প্রভাব পড়েনি বলেও জানিয়েছে রাজ্য প্রশাসন। তবে দীঘা ও সুন্দরবনের সমুদ্র তীরবর্তী এলাকাগুলিতে ঝড়ের কিছুটা প্রভাব পড়েছে বলে জানা যায়। সেখানে কিছু মাটির ঘর বাড়ি ভেঙে পড়েছে।

গতকাল রাত থেকে রাজ্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সমস্ত রাত জেগে ঘূর্ণিঝড় এর সমস্ত ক্ষয়ক্ষতি তদারকি করেছেন। কলকাতা পুরসভার মেয়র ফিরহাদ হাকিম ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলার জন্য সারা রাত পুরসভার কন্ট্রোল রুমে কাটিয়ে দিয়েছেন। কিন্তু ঘূর্ণিঝড়ের সেরকম কোনো প্রভাব না থাকায় একপ্রকার খুশি রাজ্যবাসী।

তবে ওড়িশা রাজ্যের গোপালপুর ও পুরীতে ঝড়ের ব্যাপক প্রভাব পড়েছে। গাছপালা ভেঙে পড়েছে ,ভুবনেশ্বর স্টেশন এর চাল উড়ে গিয়েছে ,তছনছ হয়ে গিয়েছে ভুবনেশ্বর এয়ারপোর্ট। সূত্রের খবর ঘণ্টায় প্রায় ১৯৫ কিলোমিটার বেগে ঘূর্ণিঝড় হয়ে গিয়েছে।কেন্দ্র সরকারের তরফ থেকে ঘূর্ণিঝড় ফনির মোকাবিলার জন্য ১০৮৬ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছিল। যুদ্ধকালীন তৎপরতায় ক্ষয়ক্ষতি মেরামতের কাজ চলছে।

বাতিল নরেন্দ্র মোদির রোড শো

বাংলা নিউজ ডেস্ক : বঙ্গ বিজেপির ইচ্ছে ছিল পশ্চিমবঙ্গে ভোটে জিততে শেষ মুহূর্তে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে দিয়ে কলকাতাতে রোড শো করানো, কিন্তু সেই ইচ্ছেতে কার্যত জল ঢেলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। যদিও দলের পক্ষ থেকে কৈলাশ বিজয় বর্গী বলেন যে ভোটের শেষ মুহূর্তে বিভিন্ন রাজ্যের প্রচারে ব্যস্ত থাকবে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। রোড শো করানোর জন্য সময় পাওয়া যাবে না, তাই প্রধানমন্ত্রীর বদলে সর্বভারতীয় বিজেপি সম্পাদক অমিত শাহ কে দিয়ে রোড শো করানোর পরিকল্পনা করছে ভারতীয় জনতা পার্টি।


বলা হচ্ছে ১৭ থেকে ১৯ এর মধ্যে কোন একটা দিন এই রোড শো করা হতে পারে। তবে নরেন্দ্র মোদির পরিবর্তে অমিত শাহ দিয়ে রোড শো করিয়ে কতটা আশানরুপ ফল পাওয়া যায় সেটাই দেখার।

কুকুরের মতো টেনে বের করো মারবো,উত্তর প্রদেশ থেকে এক হাজার ছেলে ঢুকিয়ে দেব

বাংলা নিউজ অনলাইন ডেস্ক : নির্বাচনের আগে ফের বিতর্কের কেন্দ্রে ঘাটাল লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী ভারতী ঘোষ।ওই লোকসভা কেন্দ্রের একটি এলাকায় আজ দেখা যায় পুলিশের সামনেই দুই যুবক কে হুমকি দিতে।ওই এলাকা থেকে ওই যুবকদের চলে যেতেও বাধ্য করেন তিনি।ভারতীকে বলতে শোনা যায়,”হুমকি দিলে কুকুরের মতো টেনে বের করো মারবো,উত্তর প্রদেশ থেকে এক হাজার ছেলে ঢুকিয়ে দেব,কেউ বাঁচাতে পারবে না”।


প্রাক্তন আইপিএস তথা ঘাটাল কেন্দ্রের প্রার্থীর মুখে এই ধরনের কথা শোনার পর চমকে ওঠে সকলে।এর আগেও ভারতী-র বিরুদ্ধে এই ধরনের হুমকি-র অভিযোগ উঠেছে।রাজ্য সরকার সুপ্রিম কোর্ট-এ পর্যন্ত মামলা দায়ের করেছে যাতে ভারতী-কে তার নির্বাচনী এলাকায় ঢুকতে দেওয়া না হয়।সেই মামলা এখনও বিচারাধীন সুপ্রিম কোর্ট-এ।আজকের এই ঘটনায় তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস।পার্থ চ্যাটার্জী ভারতী ঘোষের বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনের অভিযোগ করবে বলে জানিয়েছে।


মমতা ব্যানার্জী-ও আজ তার রোড শো থেকে এই ঘটনার তীব্র প্রতিক্রিয়া জানান।তিনি বলেন “দেবের বিরুদ্ধে যে লড়াই করছে তার পঞ্চায়েত-এ লড়ার-ই ক্ষমতা নেই।ওর বিরুদ্ধে বহু মামলা আছে,রাজনীতি-তে একটা সীমা রেখা থাকা জরুরী,যা মানা হচ্ছে না”।ভারতী ঘোষের আজকের হুমকির পরিপ্রেক্ষিতে রাজ্য রাজনীতি উত্তাল।

কেজরিওয়ালের ওপর আক্রমন:

বাংলা নিউজ ব্যুরো :দিল্লী-র মুখ্যমন্ত্রী তথা আপ নেতা অরবিন্দ কেজরিওয়াল-এর ওপর হামলার ঘটনা ঘটল আজ।আম আদমি পার্টি-র একটি র‍্যালি চলাকালীন হঠাৎ-ই এক যুবক গাড়ি-তে উঠে কেজরিওয়াল-কে সপাটে চড় মারেন।এরপরই কেজরিওয়াল পরে যান,তার সাথীরা ধরে ফেলেন তাকে।ততক্ষনে উপস্থিত আপ সমর্থকদের দের হাতে ধরা পরে যান ওই যুবক।সাথে সাথে পুলিশ ওই যুবক-কে গ্রেপ্তার করে সরিয়ে নিয়ে যায়।খোলা জীপ গাড়িতে দাঁড়িয়ে জনতার সাথে কথা বলছিলেন কেজরিওয়াল।সেই সময়-ই এই ঘটনা ঘটে যায়।


এর আগেও কেজরিওয়াল-এর ওপর হামলার ঘটনা ঘটে।আম আদমি পার্টি-র মতে এটা বিজেপি-র চক্রান্ত।অরবিন্দ কেজরিওয়াল বরাবরই বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন।এই জন্যই কখনও কালি ছোঁড়া,কখনও জুতো ছোঁড়া-র মতো ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ।আজ একেবারে সরাসরি চড় মারার ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে জাতীয় রাজনীতি-তে।


সুরেশ নামের ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে আইননানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে দিল্লী পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।যদিও একজন মুখ্যমন্ত্রী-র ওপর কি করে বারবার এই ধরনের আক্রমনের ঘটনা ঘটছে তার জবাব অবশ্য প্রশাষন দিতে পারে নি।

ভোট-হিংসায় কাটা গেল বিজেপি সমর্থকের আঙুল

বাংলা নিউজ অনলাইন ডেস্ক : ভোট পরবর্তী হিংসায় আবার উওপ্ত হয়ে উঠল রাজ্য রাজনীতি।সকাল বেলাই বীরভূম জেলার মল্লারপুর এলাকায় এক বিজেপি সমর্থকের আঙুল কেটে নেওয়ার ঘটনা ঘটে।অভিযোগ,এলাকার এক তৃণমূল নেতা ধারালো অস্ত্র নিয়ে আক্রমন করে দু জন বিজেপি সমর্থকের ওপর।এর মধ্যে একজনের আঙুলে কোপ পরে।ওই বিজেপি কর্মী গতকাল বুথ এজেন্ট হিসেবে ছিলেন।


এরপরই উত্তেজিত গ্রামের বিজেপির সমর্থকরা ওই তৃণমূল নেতার বাড়ি আক্রমন করে।গোটা বাড়ি দখল করে বিজেপির পতাকা লাগিয়ে দেওয়া হয়।খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই অভিযুক্ত নেতাকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে।বিজেপি সমর্থকদের সাথে পুলিশেরও সংঘর্ষ হয়।গোটা এলাকায় এখনও ব্যাপক উত্তেজনা রয়েছে।


ভোট হিংসায় বারবার শিরোনাম হিসেবে উঠে এসেছে বীরভূম।গতকাল নির্বাচনেও নানুর সহ বেশ কয়েকটি জায়গায় তৃণমূল-বিজেপি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।ভোট মেটার পরেও পরিস্থিতি উওপ্ত হয়ে রয়েছে গোটা বীরভূম জুড়ে।এলাকয় কমিশন ও কেন্দ্রীয় বাহহিনীর জওয়ানদের মোতায়েন করা হয়েছে।

রাহুল-কে নোটিশ কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক-এর

বাংলা নিউজ ডেস্ক : ভোটের আগে ফের নিশানায় রাহুল গান্ধী।ভারতীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক-এর পক্ষ থেকে আজ রাহুল গান্ধী কে নোটিশ পাঠানো হয়েছে।সেই নোটিশে বলা হয়েছে,তাকে দু সপ্তাহের মধ্যে ভারতীয় নাগরিকত্ব-এর প্রমানপত্র দাখিল করতে হবে।রাহুল আমেঠি থেকে নির্বাচনের মনোনয়ন পেশ করার পর থেকেই এই বিতর্ক শুরু হয়।

বিজেপি-র একটি অংশ দাবী করতে থাকে যে রাহুল গান্ধী ভারতীয় নাগরিক-ই নন।তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক।সেই দেশে তিনি কর-দিয়েছেন।তাই ভারতীয় সংসদীয় নির্বাচনে অংশগ্রহন করার অধিকার তার নেই।


এই মর্মে বিজেপি সাংসদ কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক-এর কাছে অভিযোগ জানান।দাবী করেন রাহুলের নাগরিকত্ব-এর প্রমান যাচাই করা হোক।এই অভিযোগ এর পরই আজ রাহুল গান্ধী-কে নোটিশ ধরানো হয়।লোকসভা নির্বাচনের আগে এই ঘটনায় যথেষ্ট চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে রাজ্য রাজনীতি-তে।


যদিও কংগ্রেস এই ঘটনাকে গুরুত্ব দিতে নারাজ।তার দাবী মোদী সরকার বিরোধীদের কন্ঠ রোধ করতে চাইছে,তাই তাদের হেনস্থা করা হচ্ছে।রাহুল গান্ধী তার নাগরিকত্ব-এর সব প্রমানপত্র দাখিল করে দেবেন।

পূনর্নিবাচনের আদেশ নির্বাচন কমিশন-এর:

বাংলা নিউজ ব্যুরো : বিগত দফা অনুষ্ঠিত হওয়া নির্বাচন-এর ক্ষেত্রে বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি বেশ কিছু বুথে পূর্ননির্বাচন-এর দাবী তুলেছিল নির্বাচন কমিশনের কাছে।আজ জাতীয় নির্বাচন কমিশন জানিয়ে দিল, রায়গঞ্জ লোকসভা কেন্দ্রের- ৩ টি বুথে পূর্ননির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।কমিশন স্ক্রুটিনি করে এই ৩ টি বুথে ফের নির্বাচন করার সুপারিশ করে।সেই অনুযায়ী, গোয়ালপোখর ও ইসলামপুর-এর ৩ টি বুথে আবার ভোট গ্রহন করা হবে।কমিশন জানিয়েছে আগামি সোমবার ২৯ এপ্রিল-এই বুথ গুলিতে ভোটদান পর্ব চালানো হবে।ওই বুথ গুলিতে ভোটাটারদের ভোট দিতে দেওয়া হয় নি বলে,অভিযোগ করেন সিপিআইএম প্রার্থী মহম্মদ সেলিম।


অন্যদিকে,কোচবিহার লোকসভা নির্বাচনের ক্ষেত্রেও বিজেপি বেশ কিছু যায়গায় পূর্ননির্বাচনের দাবী জানিয়েছিল নির্বাচন কমিশনের কাছে।আজ কমিশন জানিয়ে দিয়েছে শীতলকুচি এলাকার ১ টি মাতত্র বুথে পুর্ন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামি ২৯ এপ্রিল।কোচবিহারের বিজেপি প্রার্থী নিশীথ প্রামানিক আরও বেশি বুথে পুনরায় ভোট নেওয়ার আবেদন জানালেও কমিশন ১ টি মাত্র বুথে ফের ভোট নেওয়ার কথা ঘোষনা করেছে।


পূর্ননির্বাচনের ভোট গ্রহন পর্ব কতটা শান্তিপূর্ণ ভাবে সমাপ্ত করতে পারে কমিশন এখন সেটাই দেখার।

প্রধানমন্ত্রী-র কপ্টারে তল্লাশির জের:

বাংলা নিউজ ব্যুরো : প্রধানমন্ত্রীর হেলকপ্টার তল্লাশি চালাতে গিয়ে নির্বাচন কমিশনের কোপের মুখে পড়েছিলেন আইএএস অফিসার মহম্মদ মহসিন।মহসিন জানিয়েছেন,অন্ধকারে নিজের সঙ্গে লড়াই চালাচ্ছেন তিনি।এসপিজি স্পেশাল প্রোটেকশন গ্রুপ-এর নিয়মবহির্ভূত কাজ করার অভিযোগে বরখাস্ত হতে হয় মহসিনকে। যদিও পরে সেই সিদ্ধান্ত বাতিল করে তাঁর বিরুদ্ধে শুধুমাত্র শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে জানায় জাতীয় নির্বাচন কমিশন।


কমিশনের এই সিদ্ধান্তের চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সেন্ট্রাল অ্যাডমিনিস্ট্রিটিভ ট্রাইব্যুনাল-এ দ্বারস্থ হন ১৯৯৬ ব্যাচের কর্নাটকের এই অফিসার।মহম্মদ মহসিন বলেন,তিনি শুধুমাত্র কর্তব্য পালন করেছেন,চাপে পড়েই তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে। যদিও এখনও পর্যন্ত উপযুক্ত কারণ দেখাতে পারে নি কমিশন,বলে মহসিনের দাবী।


ওড়িশার সম্বলপুরের সাধারণ পর্যবেক্ষক হিসাবে কর্তব্যরত মহসিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর হেলিকপ্টারের তল্লাসি চালান এবং ভিডিয়োগ্রাফি দেওয়ার আর্জি জানান। কিন্তু তাঁকে কর্তব্যে গাফিলতি এবং অবাধ্য আচরণের অভিযোগ এনে বরখাস্ত করা হয়।


এই বিতর্কে এখনই ইতি পরা-র কোনও সম্ভাবনা নেই,কারন মহসিন তার লড়াই চালিয়ে যেতে বদ্ধপরিকর।সততা-র সাথে তিনি তসর কাজ করে যাবেন বলে জানিয়েছেন আইএএস অফিসার মহসিন।