জয়মাল্য দেশমুখ : পুরী ঘুরতে যাওয়া প্রত্যেকের জন্য কোনারকের সূর্য মন্দির এক অন্যতম আকর্ষন।পুরী থেকে সড়ক পথে ৪৫/৫০ মিনিটের মধ্যেই পৌঁছে যাওয়া যায় কোনারক মন্দিরে।দিগন্ত বিস্তৃত এলাকা নিয়ে এই মন্দির সমাদৃত ওড়িশা-র বিখ্যাত পাথড়ের কাজের জন্য।মহারাজা নরসিংহদেবের আমলে তৈরী এই মন্দির সূর্যদেবের কথা বলে। বিশাল মন্দিরটি রথের আদলে,যার ১২ জোড়া চাকা আছে,আর ৭ টি ঘোড়া টেনে নিয়ে যাচ্ছে।এই আদলেই মূল মন্দিরটি তৈরী।মূল মন্দিরটিকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন ছোট-বড়ো স্থাপত্য আছে।


আপনি দেখতে পাবেন গোটা মন্দিরের গায়ে পাথর কেটে অসাধারন সব চিত্র খোদাই করা আছে।বিভিন্ন বিভঙ্গের মূর্তিগুলি অসাধারন নন্দনীকই শুধু নয়,এর মধ্যে আছে গানিতিক অঙ্ক।আজ থেকে কয়েকশ বছর আগে তৈরী এই মন্দিরে গিয়ে আপনি অবাক হয়ে ভাববেন কোন মহাজাগতিক প্রানী কি ভাবে এই বিশাল মন্দির তেরী করল।

ক্রেন আবিষ্কার হওয়ার বহু আগেই বিশাল বিশাল পাথরের ব্লক দিয়ে অনবদ্য ইঞ্জিনিয়ারিং দক্ষতায় এই মন্দির তেরী।মন্দিরের গায়ে খোদাই করা আছে নৃত্যরত বিভিন্ন নারী-পুরুষের মূর্তি।আর আছে মোট ২৪ টি বিশালাকৃতি চাকা।আর মন্দিরে ঢোকার মুখেই আপনাকে অভ্যর্থনা জানাবে ‘সিংহ-গজ’।


এই মন্দিরে ঢুকতে ৪০ টাকা দিয়ে আপনাকে টিকিট কাটতে হবে।পাশেই রয়েছে কোনারক মিউজিয়াম,সেখানে গেলে আরও বিশদে এই মন্দির সম্পর্কে জানতে পারবেন।এছাড়াও বিকেলে আছে লাইট-এন্ড-সাউন্ড শো,আলাদা টিকিট কেটে আপনি উপভোগ করতে পারেন।

Leave a Reply