জয়মাল্য দেশমুখ : রাত পোহালেই লোকসভা নির্বাচনের ২-য় দফার ভোট-গ্রহন শুরু হবে।এই রাজ্যের ৩ তি কেন্দ্র সহ গোটা দেশের মোট ৯৫ টি কেন্দ্রে আগামিকাল ভোট হবে।এই রাজ্যের দার্জিলিং,জলপাইগুড়ি ও রায়গঞ্জ-এ ভোট দেবেন সাধারন মানুষ।প্রথম দফা ভোট নিয়ে বিরোধীদের লাগাতার অভিযোগের পর আগামি কালের ভোটের জন্য রাজ্যের ওই কেন্দ্র গুলিতে থাকছে প্রায় ১৯৫ কোম্পানি কেন্দ্রীয় সশস্ত্র বাহিনী।


দার্জিলিং লোকসভা ২০১৪ সালে ছিল বিজেপি-র দখলে,আর রায়গঞ্জ লোকসভা ছিল সিপিআইএম এর দখলে।একমাত্র জলপাইগুড়ি লোকসভা তৃণমূলের কংগ্রেসের দখলে ছিল।তাই এই কেন্দ্রগুলিতে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই-এর সম্ভাবনা রয়েছে।


বিমল গুরুঙ্গ ও মন ঘিসিং-দের সহযোগিতা নিয়ে পাহাড়ে লড়াইয়ে আছে বিজেপি।তাই তৃণমূলের কাছে এই কেন্দ্র এবার প্রেস্টিজ ফাইট।পাহাড়ে বিনয় তামাং গোষ্ঠি-র সাহায্যে তৃণমূলের প্রভাব বিগত কয়েক বছরে বাড়লেও লোকসভা আসনটি তাদের কাছে অধরা থেকেছে।অন্যদিকে রায়গঞ্জ কেন্দ্রে সিপিএম ও কংগ্রেসের মধ্যে লড়াই হতে চলেছে।লড়াইয়ে আগের থেকে শক্তি বাড়িয়েছে তৃণমূল ও বিজেপি।তাই সিপিএম-এর কাছে এই আসনটি ধরে রাখা এবার কঠিন চ্যালেঞ্জ-এর মুখোমুখি।


কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে তৈরী নির্বাচন কমিশন-ও।প্রায় ৮০% বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনী ও ২০% বুথে রাজ্য পুলিশ থাকবে বলে খবর।অভিযোগবিহীন অবাধ ও শান্তিপূর্ন নির্বাচন পরিচালনা করাও নির্বাচন কমিশনের কাছে চ্যালেঞ্জ।আর তৈরী সাধারন মানুষও তাদের প্রতিনিধি নির্বাচনের জন্য।ফলাফল কি হবে তার জন্য অপেক্ষা করতে হবে ২৩-মে পর্যন্ত।

Leave a Reply